খাবার শেয়ার করতে অনীহা অনন্যা পান্ডের, “খাবার নেই” বলে অভুক্ত দীপিকাকে বাড়ি থেকে বের করেছিল!

0
17

স্যোশাল মিডিয়া এখন ‘গেহেরাইয়া’ ময়। ভালো হোক কিংবা খারাপ, মানুষের মনে অবশ্য‌ই ছাপ ফেলেছে এই ছবি। ছবিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে দেখা গিয়েছে দীপিকা পাড়ুকোন, সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী, অনন্যা পাণ্ডে এবং ধৈর্য্য কারওয়ার।

Advertisement

সম্প্রতি, দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অনন্যা পাণ্ডের ব্যাপারে একটি অজানা এবং মজাদার তথ্য শেয়ার করলেন ছবির পরিচালক শকুন বত্রা। তাঁকে সমর্থন যোগালেন ‘গেহরাইয়া’-এর প্রধান অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন। সাইরাস ব্রোচার ইউটিউব চ্যানেল ‘সাইরাস সেজ’-এ ‘গেহরাইয়া’-র প্রচার সারতে সম্প্রতি হাজির হয়েছিলেন ছবির গোটা কাস্ট। সেখানেই মজার ছলে কোথায় কথায় অনন্যার এই কীর্তির কথা ফাঁস করলেন শকুন-দীপিকা।

শকুনের কথায়, “মাত্র একবার অনন্যা তাঁর কিমা পাও ভাগ করে না খেলেও সেই পদের থেকে স্রেফ কড়াইশুঁটিগুলি বেছে বেছে বের করে তাঁকে দিয়েছিল!” শোনামাত্রই দীপিকা বলে ওঠেন, “তাও তো তুমি কিছু পেয়েছিলে। আমাদের কপালে জুটেছিল লবডঙ্কা।”

এরপরেই গোটা ব্যাপারখানা ফাঁস করেন বলি-সুন্দরী। দীপিকা বলেন, “একবার জানতে পারলাম অনন্যার বাড়িতে কিমা পাও রান্না হয়েছে। শোনামাত্রই আমরা নিজে থেকেই হাজির হয়েছিলাম ওঁর বাড়িতে। কোথায় খাওয়াবি তা নয়, আমাদের অনন্যা বলে দিয়েছিল, আসতে চাও ভালো কথা কিন্তু এতটাও কিমা পাও রান্না করা হয়নি যে তোমাদের সবার পেট ভরবে। এবং বাস্তবিকই তাই। আমাদের সামনে বসে কমপক্ষে চল্লিশ মিনিট ধরে ও একা একা সেই খাবার খেয়েছিল। আমাদের সঙ্গে গল্প করলেও এতটুকু খাবারও ভাগ করেনি! শেষমেশ অর্ডার দিয়ে খাবার আনিয়ে খেয়েছিলাম আমরা।”

প্রসঙ্গত, ‘গেহরাইয়া’-র সমন্ধে ছবির পরিচালক জানিয়েছেন, “এটা শুধু একটা ছবি নয়, মানুষের সম্পর্কের ভিতরে ঢুকে পড়বার একটা জার্নি, বর্তমান জীবনের পরিণত সম্পর্কের একটা আয়না এই ছবি। কেমনভাবে আমরা সম্পর্ক, আবেগের বেড়াজালে আটকে পড়ি. কেমনভাবে আমাদের নেওয়া প্রতিটি পদক্ষেপ,সিদ্ধান্ত আমাদের জীবনকে প্রভাবিত করে, আর শুধু আমাদের নয় সেই সব বিষয়গুলো আমাদের আশেপাশের মানুষদেরও জীবন থেকেও অধরা থাকে না।” গত ১১ ফেব্রুয়ারি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম আমাজন প্রাইমে মুক্তি পেয়েছে ‘গেহরাইয়া’।

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে