“প্রার্থী জিতলেও দলে তাঁদের জায়গা হবে না”, গোঁজ প্রার্থী নিয়ে নাকানিচুবানি খাচ্ছে তৃণমূল

0
16

বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতিতে ১০৮ টি পুরসভার ভোটে দুটি প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হয়েছিল তৃণমূলের। শুধু বিভ্রান্তি তৈরিই নয়, মনোনয়নও জমা পড়েছিল সেই দুই তালিকার ভিত্তিতেই। এ বার দলের স্বীকৃত তালিকার বাইরে যাঁরা নির্দল হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ শুরু করল তৃণমূল কংগ্রেস।

Advertisement

মনোনয়ন প্রত্যাহারের সরকারি সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার পরে তৃণমূলের তরফে ৪৮ ঘণ্টা সময় দিয়ে গোঁজ প্রার্থীদের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বলা হয়েছিল। তা না করলে দল যে কড়া পদক্ষেপ করবে সে কথাও জানিয়েছিলেন দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। সেই মতো বৃহস্পতিবার একাধিক জেলায় বহু ‘গোঁজ’ প্রার্থীকে দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তৃণমূলের সংশ্লিষ্ট জেলা নেতৃত্ব।

এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “এটা শৃঙ্খলার প্রশ্ন। জেলায় জেলায় বহিষ্কার শুরু হয়েছে। এখনও যাঁরা লড়াইয়ে আছেন, তাঁদের বলব, সরে দাঁড়ান। দলের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারে নেমে পড়ুন।” বুধবার ঝাড়গ্রাম ও পশ্চিম মেদিনীপুরে মোট ১৯ জন নির্দল প্রার্থীকে বহিষ্কার করে তৃণমূল।

বৃহস্পতিবার পুরুলিয়ায় ৮ জন, বীরভূমে তিনজন এবং নদিয়ায় ২৩ জনকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে। বীরভূমের দুবররাজপুরে তিন বিক্ষুব্ধ প্রার্থীকে এ দিন বহিষ্কার করা হয়েছে। কিছু জায়গায় শাস্তি ঘোষণা করা হলেও বহু জায়গায় তা করতে পারেননি জেলা নেতৃত্ব।

দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া ও হুগলির এই অবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে দলের অন্দরে। উত্তর ২৪ পরগনার একাধিক পুরসভায় গোঁজ রয়েছে।
এই জেলার হাবড়া, অশোকনগর এবং বারাসাত পুরসভার গোঁজ সম্পর্কেও এখনও কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় প্রশ্ন উঠেছে দলের ভিতরেই। এ দিন এ সব নিয়ে জেলার নেতারা বৈঠক করলেও সমাধানসূত্র মেলেনি।

হুগলির দলের তালিকার বাইরে প্রার্থীর সংখ্যা অনেক। জেলার ১২টি পুরসভার মধ্যে উত্তরপাড়ায় ১২, ডানকুনিতে ৫, বৈদ্যবাটিতে ১৩, চাপদানিতে ২, শ্রীরামপুরে ১ এবং আরামবাগে ৩ জন নির্দল প্রার্থী রয়েছেন। দলের তরফে কড়া বার্তা দেওয়া সত্ত্বেও তাঁদের মধ্যে মাত্র ২ জন মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

কোচবিহারে ৫ নির্দলের কেউ-ই মনোনয়ন প্রত্যাহার করেননি। জলপাইগুড়িতে লড়াইতে আছেন ২ বিক্ষুব্ধ। মুর্শিদাবাদের বেলডাঙার প্রাক্তন পুরপ্রধান ভরত ঝাওর নির্দল হয়ে দাঁড়িয়েছেন তৃণমূলের টিকিট না পেয়ে। কান্দি, জিয়াগঞ্জ, আজিমগঞ্জেও নির্দল রয়েছে। মুর্শিদাবাদ পুরসভায় ৩, ধুলিয়ান পুরসভায় ৫ জন বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মী নির্দল হয়ে দাঁড়িয়েছেন। জঙ্গিপুর পুরসভায় এক তৃণমূলনেত্রী নির্দল হয়ে দাঁড়িয়েছেন।

দলীয় সূত্রে খবর, গোঁজ প্রার্থীর সমস্যা তীব্র হলেও বহু জেলায় তাঁদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপও করেননি জেলা দলের নেতারা। পার্থবাবু দলের অবস্থান জানিয়ে ফের এ দিন বলেন, “নির্দল প্রার্থী জিতলেও দলে তাঁদের জায়গা হবে না। আশা করব, এ কথা মাথায় রেখে এখনও বিক্ষুব্ধরা লড়াই থেকে সরে যাবেন।”

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে