ফর্ম পূরণ করেও জেলাগুলিতে অনুপস্থিত বহু উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী! কারণ খুঁজতে মরিয়া শিক্ষা দফতর

0
20

এ বারের উচ্চ মাধ্যমিক নিয়ে নানা জল্পনা ছিল। কারণ, গত দু’বছরে কার্যত সে ভাবে ক্লাসঘরে পঠনপাঠন হয়নি। পড়াশোনা মূলত অনলাইনেই হয়েছে। কিন্তু এ বার উচ্চ মাধ্যমিক হয়েছে অফলাইনে। প্রথম দিন প্রথম ভাষার পরীক্ষা নির্বিঘ্নেই সম্পন্ন হয়েছে। প্রশ্নপত্র নিয়ে বড় মাপের অভিযোগ না-থাকলেও কিছু কিছু ‘উষ্মা’ প্রকাশ পেয়েছে।

Advertisement

নিজের স্কুলেই (হোম সেন্টার) এ বার উচ্চ মাধ্যমিক দিচ্ছেন পড়ুয়ারা। তাতে অনেকে খুশি। কিন্তু ভিন্ন সুরও আছে। যেমন হিন্দু স্কুলের এক পরীক্ষার্থী এ দিন বললেন, ‘‘এগারো ক্লাসে এই স্কুলে ভর্তি হয়েছিলাম। কিন্তু স্কুলেই তো আসতে পারিনি। একে হোম সেন্টার বলব কী ভাবে?’’

তবে কোভিড যে সমাজে ছাপ রেখে গিয়েছে, তার প্রমাণ খাস কলকাতায় না মিললেও জেলাগুলিতে কার্যত ধরা পড়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। কারণ, বহু জেলাতেই ফর্ম পূরণ করেও অনেক পরীক্ষার্থী আসেননি। শিক্ষক মহলের সন্দেহ, অতিমারির সময় অনেক ছাত্র পড়াশোনা ছেড়ে ভিন রাজ্যে কাজের খোঁজে গিয়েছেন। ছাত্রীদের অনেকের বিয়ে হয়ে গিয়েছে। সম্ভবত, গরহাজিরার পিছনে সেটাই বড় কারণ।

আলিপুরদুয়ারে ফর্ম পূরণ করেও পরীক্ষা দেননি জেলার চারশো পরীক্ষার্থী। চা বলয়ে অনুপস্থিতির হার বেশি। কোচবিহারে অন্তত ৯০০ পরীক্ষার্থী গরহাজির ছিলেন। মুর্শিদাবাদেও একাধিক স্কুল ও মাদ্রাসায় অনুপস্থিত ছিলেন কিছু পরীক্ষার্থী। পূর্ব বর্ধমানের একাধিক শিক্ষক সংগঠনের দাবি, গ্রামের দিকে অনেক স্কুলেই ১৫ শতাংশ পর্যন্ত পরীক্ষার্থী আসেননি। তুলনায় হুগলি, হাওড়া, বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমান, দুই মেদিনীপুরে অবশ্য বেশির ভাগ পড়ুয়াই পরীক্ষা দিয়েছেন।

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে