Bharatbandh: কিষাণ মোর্চার ডাকা ভারত বনধে মিশ্র প্রতিক্রিয়া রাজ্যে। সাধারন পথচারীকে চড় বাম নেতার।

0
157



একদিকে আজ বাংলায় উপনির্বাচনের প্রচারের শেষ দিন অপরদিকে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার ডাকা ভারত বনধ যার সমর্থনে পথে নেমেছে সিপিআইএম নেতা কর্মী ও সমর্থকেরা। ভবানীপুরে শেষ দিনের প্রচারে ধুন্ধুমার যেমন হয়েছে তেমনি এক সিপিআইএম নেতা একজন সাধারন পথচারীকে চড় মারেন। মোটের ওপর আজ সারা দিন টানটান উত্তেজনা লক্ষ্য করা গেছে সর্বত্র। বনধের মিশ্র প্রভাব পড়তে দেখা গেছে সব জায়গায়তেই।

বনধ সমর্থনে সোমবার উত্তর থেকে দক্ষিনের বেশ কিছু জায়গাতে ট্রেন অবরোধ করেন বাম নেতা ও কর্মী সমর্থকেরা। তবে কোন জায়গাতেই বেশিক্ষনের জন্য অবরোধ চালিয়ে যেতে পারেন নি তারা জিআরপি ও আরপিএফ এসে অবরোধ তুলে দেন। যাদবপুর, বর্ধমান কর্ড শাখা, বর্ধমানের মেমারি, হুগলীর পান্ডূয়া প্রভৃতি জায়গায় রেল অবরোধ করেন বনধ সমর্থকরা। এছাড়া বাম সমর্থকেরা বিভিন্ন জেলা যেমন পূর্ব মেদিনীপুর, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, দূর্গাপুর, হাওড়ার বেশ কিছু জায়গায় রাজ্য সড়ক ও জাতীয় সরকার অবরোধ করে। কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগণা, হুগলীর বেশ কিছু জায়গাতে জোর করে দোকান বন্ধ করে দেওয়া, গাড়ির হাওয়া খুলে দেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটে। বনধের সমর্থনে কলকাতার মৌলালিতে বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্র প্রমুখ বাম নেতারা মিছিল করেন। বর্ধমান শিল্পাঞ্চলে বনধের কিছুটা প্রভাব দেখা গেলেও হুগলী, ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে এর কোন প্রভাবই পড়ে নি।

সোমবারই বনধ কার্যকর করতে দূর্গাপুরের কোকওভেন থানা এলাকায় বাঁকুড়া মোড় অবরোধ করে বাম নেতা ও কর্মী সমর্থকেরা। সেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কুশ পুতুল জ্বালানো হয়। তারপরেই বনধের প্রতিবাদ করায় পথচারীদের সঙ্গে বচসায় জড়ায় বনধ সমর্থকেরা। এরপরই ধাক্কাধাক্কি, হাতাহাতি শুরু হয় দুপক্ষের এমন সময় এক বাইক আরোহীকে চড় মারেন সিপিআইএমের জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য পঙ্কজ রায় সরকার। ঘটনার পর বিন্দুমাত্র আক্ষেপ তো চোখে পড়েই না বরং কাজটি তিনি ঠিকই করেছেন বলে মনে করেন এই বাম নেতা।

News By Tania

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে