লকেট চট্টোপাধ্যায়ের অনুপস্থিতিতে সিঙ্গুরে কেন ধর্না কর্মসূচি? অস্বস্তি গেরুয়া শিবিরে

0
31

সিঙ্গুরে বিজেপির তিনদিনের ধর্না কর্মসূচি ছিল। এলাকার সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ের অনুপস্থিতিতে সিঙ্গুরে কেন ধর্না কর্মসূচি? এমন প্রশ্নে অস্বস্তিতে ছিল বিজেপি। এবার অস্বস্তি আরো বেড়ে গেল। লকেটের প্রশ্ন, ‘‘এখন কলকাতা পুরভোটের প্রচার চলছে। সংসদে অধিবেশনও চলছে। এই সময়ে সিঙ্গুরে কেন ধর্না কর্মসূচি নেওয়া হল আমি জানি না। আমার মনে হয় আর ক’টা দিন অপেক্ষা করে শীতকালীন অধিবেশন শেষে আমি রাজ্যে ফিরলে এই কর্মসূচি নেওয়া যেত।’’

Advertisement

কৃষক আন্দোলন নাম হলেও এই সভাতে কৃষকরাই ছিল অনুপস্থিত। হাতে গোনা কয়েকটা কৃষক ছিলেন। ধরনার প্রথমদিন দলের রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার, তাঁর দুই পূর্বসূরি দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিংহেরা ছিলেন সিঙ্গুরে। দ্বিতীয় দিন ছিলেন সুকান্ত মজুমদার একাই। বেশি লোকজন হয়নি, ধর্নায়। লকেট অনুগামীদের দাবি, এলাকার সাংসদকে এড়িয়ে কর্মসূচি নেওয়াতেই সাফল্য এল না। এই প্রসঙ্গে লকেট বলেন, ‘‘সংসদে আমি হুইপ রয়েছি। সেই কারণে আমার পক্ষে এখন দিল্লি ছাড়া সম্ভব ছিল না। আমি প্রধানমন্ত্রীর দফতরে চিঠি দিয়ে চারদিনের জন্য উত্তরাখণ্ডে এসেছি। সেটাও দলের নির্দেশে। আগে থাকতে কথা হলে একদিনের জন্যও সিঙ্গুরে যেতেই পারতাম। তবে আমার মনে হয়, আর কয়েকটা দিন অপেক্ষা করে সিঙ্গুরের কর্মসূচি নেওয়া যেত। এখন কলকাতা পুরভোটকেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া উচিত ছিল দলের।’’

রাজ্য বিজেপির নেতারা অবশ্য বলছেন, লকেট ইদানীং রাজ্য রাজনীতি নিয়ে খুব একটা আগ্রহী নন। এক শীর্ষ নেতা লকেট প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘লকেট এই রাজ্যের অন্যতম সাধারণ সম্পাদকও। সেটাও দলেরই দেওয়া দায়িত্ব। কিন্তু তিনি সেটা ছেড়ে জাতীয় রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠা চাইছেন। সেই কারণেই রাজ্যের কোনও কর্মসূচিতে তাঁকে পাওয়া যাচ্ছে না।’’ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘দল একটা দায়িত্ব দিলে আর একটা বাদ দিতে বলে না। দিলীপদা তো সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি। কিন্তু বাংলায় তাঁর যে দায়িত্ব রয়েছে সেটা কি তিনি অস্বীকার করছেন!’’

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে