Farmers law: বাতিল ঘোষণার পরেও ঘরে বাইরে চাপের মুখে মোদী সরকার।

0
16

অবশেষে দীর্ঘদিন কৃষকদের আন্দোলনের পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিতর্কিত তিনটি কৃষি বিল প্রত্যাহার করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এবং দিল্লিতে অবস্থান রত কৃষকদের অনুরোধ করেছেন তাঁরা যেন নিজেদের ঘরে ফিরে যান। কিন্তু তথাপি কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর থেকে চাপ যেন কিছুতেই কমতে চাইছে না।

একে তো, আন্দোলন রত কৃষি সংগঠনগুলি মোদীর মুখের কথা বিশ্বাস করতে চাইছেন না। তাঁদের দাবি যতদিন না পর্যন্ত এই তিনটি বিল আনুষ্ঠানিক ভাবে সরকার প্রত্যাহার করছে, তাঁদের আন্দোলন চলবে। তার ওপরে এই সময়ে মোদী সরকারকে নিশানা করতে শুরু করে দিয়েছে বিরোধী দলগুলি। এরই মধ্যে বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়ে দলের মধ্যেই সমালোচিত হতে হল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে।

পিলভিটের বিজেপি সাংসদ বরুণ গান্ধী খোলা চিঠি লিখেছেন প্রধানমন্ত্রীকে। যেখানে তিনি লিখেছেন, কঠিন পরিস্থিতিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়াতে 700 জন ‘কৃষক ভাই’ মারা গেছেন। তাঁদেরকে ‘শহিদ’ বলে উল্লেখ করে বরুণ গান্ধী বলেন, এই সিদ্ধান্ত আগে নিলে এতজন নির্দোষ ব্যক্তিকে প্রাণ হারাতে হত না। শুধু এই তিনটি বিল প্রত্যাহার করলেই হবে না, তার সঙ্গে ন্যূনতম সহায়ক মূল্য যাতে কৃষকেরা পান সেদিকেও খেয়াল রাখতে সরকারকে অনুরোধ করেছেন বরুণ। চিঠিতে কৃষক নেতাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত যে সব মামলা দায়ের করা হয়েছে, সেগুলিও প্রত্যাহার করার কথা বলা হয়েছে। বরুণ গান্ধী আরো বলেছেন কিছু নেতা কৃষকদের বিরুদ্ধে হুমকি দিয়েছিলেন যার ফলশ্রুতিতে লখিমপুরের ঘটনা ঘটেছিল।এই ঘটনা গনতন্ত্রের পক্ষে অত্যন্ত লজ্জাজনক বলে মনে করেন তিনি, সে কথাও জানিয়েছেন বরুণ।

এই চিঠির তাৎপর্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ এবং সুদূরপ্রসারী বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। আগামী বছরেই পাঞ্জাব এবং উত্তর প্রদেশ সহ পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। এই বিল প্রত্যাহার করে ড্যামেজ কন্ট্রোল করার চেষ্টা করেছেন প্রধানমন্ত্রী, মতামত বিভিন্ন মহলের। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শনিবার বরুণ গান্ধীর লেখা চিঠিতে যে কথাগুলি বলা হয়েছে, কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী শুক্রবার নরেন্দ্র মোদীকে উদ্দেশ্য করে ঠিক সেই কথাই বলেছিলেন। দৃশ্যতই ঘরে এবং বাইরে কৃষি বিল নিয়ে রীতিমত চাপে মোদী সরকার।

এদিকে কৃষক সভার নেতৃত্ববৃন্দ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখের কথায় তাঁরা বিশ্বাস করেন না। তাঁরা তাঁদের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করবেন। সোমবার লখ্নউতে তাঁদের মিছিল ও সমাবেশ হবে এবং 29শে নভেম্বর সংসদ চলো অভিযান।

বিজেপি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার নতুন তিন কৃষি বিল আনার পর থেকেই তার বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে কৃষকেরা আন্দোলন করতে থাকেন। তাঁদের বক্তব্য হল, দেশের কৃষিজীবী মানুষের সম্পদ কর্পোরেট সংস্থার হাতে বেচে দেওয়াই হল এই বিলের একমাত্র লক্ষ্য। দীর্ঘ আন্দোলনের পরে কার্যত বাধ্য হয়েই সেই বিল প্রত্যাহার করে নেওয়ার কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু তারপরেও দেশ জুড়ে বিতর্কে বিদ্ধ হতে হচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকারকে। এখন এর প্রভাব ভোট বাক্স এবং রাজনৈতিক মহলে কতটা পড়বে সেই দিকেই তাকিয়ে গোটা দেশের মানুষ।

News By Gourab

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে