“আমার পদবি ব্যবহার করে ভোটে জিতেছে!” রত্নার বিরুদ্ধে অভিযোগের তীর ছুঁড়লেন প্রাক্তন স্বামী শোভন

0
25

১৩১ নং ওয়ার্ডে রত্না চট্টোপাধ্যায়ের জয়কে বিশেষ পাত্তা দিতে নারাজ কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, “১৩১ নম্বরও ওয়ার্ডে ব্যক্তি রত্না নন, জিতেছে তৃণমূল! ফলে তা রত্নার নয়, বরং তৃণমূলের জয়।” এরসঙ্গে, পুরভোটে জেতার জন্য রত্নার বিরুদ্ধে তাঁর পদবি ব্যবহার করার অভিযোগ তুলেছেন বৈশাখীবান্ধব শোভন।

মঙ্গলবার কলকাতা পুরভোটের গণনার মাঝেই স্পষ্ট হয়ে যায়, বেহালা পূর্ব বিধানসভার এলাকায় গত ভোটে শোভনের জেতা ১৩১ নম্বর ওয়ার্ড ছিনিয়ে নিয়েছেন রত্না চট্টোপাধ্যায়। ২০১৫ সালের পুরভোটে এ ওয়ার্ড ছিল শোভনের দখলে। তবে সেটি দখলে নেওয়ার পরও রত্নার দাবি, রেকর্ড ভোটে তিনি জিতেছেন।

Advertisement

রত্নার কথায়, “আমার কাছে যা খবর, তাতে ১০ হাজার ২০৬ ভোটে জিতে গিয়েছি। রেকর্ড ভোটে জিতেছি। এই ওয়ার্ড থেকে এত ব্যবধানে এর আগে কেউ জেতেননি।” যদিও সংবাদমাধ্যমকে শোভন বলেন, “ব্যক্তি রত্না দেবী এবং তৃণমূলকে গুলিয়ে ফেলবেন না। যাঁরা জিতেছেন, তাঁরা তৃণমূলের প্রতিনিধি হিসাবেই জিতেছেন।”

এখানেই শেষ নয়, এই পুরভোটে জেতার জন্য রত্না যে তাঁর পদবিকে কাজে লাগিয়েছেন, তা-ও দাবি করেছেন শোভন। শোভনের অভিযোগ, “ওঁর তো চট্টোপাধ্যায় পদবি ব্যবহার করে যা যা করার, তা হয়ে গিয়েছে। হ্যাঁ, (ভোটে) আমার পদবিই তো ব্যবহার করেছেন। যেখানে এখন বসবাস করছেন, সেখানে তাঁর আগের পদবি (দাস) নিয়ে ঘুরে বেড়াক না!”

রাজনীতি থেকে দূরে সরে গিয়ে বান্ধবী বৈশাখীর সঙ্গে চুটিয়ে জুটি বেঁধেছেন শোভনবাবু। পুজোর আগে জোড়ায় মডেলিং ও করেছেন। তবুও পুরোপুরি অরাজনৈতিক হতে পারলেন না। শোভনের মন্তব্য, “রাজনৈতিক ভাবে তৃণমূলের এই জয় অভিপ্রেত ছিল। এটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। তবে পুরভোটে বিভিন্ন অভিযোগ এড়িয়ে যাওয়া যেত। ২০১৫ সালে নির্বাচন পরিচালনা করেছিলাম আমি। এ সমস্ত ছোট-বড় সমালোচনা এড়ানো যেত। একমাত্র গিরিশ পার্কের ঘটনা ছাড়া ২০১৫ সালে এ রকম অভিযোগ ওঠার জায়গা ছিল না।”

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে