আবারো জিতলেন ফিরহাদ, কিন্তু মেয়র পদের জন্য কতটা এগিয়ে রইলেন?

0
19

এই পুরভোটে ববি আদৌ প্রার্থী হতে পারবেন কি না, তা নিয়েই একটা সময় পর্যন্ত অনিশ্চয়তা ছিল। মনে করা হয়েছিল, পুরভোটের প্রার্থিতালিকায় ‘এক ব্যক্তি, এক পদ’ নীতি মানতে পারে তৃণমূল। কিন্তু শেষে দেখা যায় ফিরহাদ লড়ার টিকিট পান। ৮২ নম্বর ওয়ার্ড থেকে তিনি জিতেছেন।

Advertisement

কলকাতার ১৪৪টি ওয়ার্ডের মধ্যে যেগুলিতে জয় নিয়ে তৃণমূলের কোনও দ্বিধা ছিল না, তার মধ্যে অবশ্যই ছিল ৮২ নম্বর। শুধু এই ওয়ার্ড কেন, বন্দর বিধানসভা এলাকার সাতটি ওয়ার্ডে জয়ের জন্যই তৃণমূল তাকিয়ে ছিল বিধায়ক ফিরহাদের দিকে। সাতে-সাত পেয়ে ববি বুঝিয়ে দিলেন, বন্দর নামক ‘দুর্গ’টি অক্ষত রয়েছে তৃণমূলের।

২০১৮ সালের নভেম্বরে শোভন চট্টোপাধ্যায় মেয়র পদ ছেড়ে দেওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা দায়িত্ব দেন ফিরহাদকে। তার জন্যশাসক তৃণমূল কলকাতা পুরসভা আইনেও বদল আনে । এর আগে কী হত? কোনও কাউন্সিলর ছাড়া কেউ মেয়র হতে পারতেন না। কিন্তু এখন ফিরহাদকে ওই মেয়রের পদ দিতেই আইন বদলায়। মেয়র হওয়ার পরে ছ’মাসের মধ্যে কেউ কলকাতার যে কোনও ওয়ার্ড থেকে জিতে আসতে পারেন। ঠিক এই ভাবে ৮২ থেকে জিতেছিলেন ফিরহাদ। আবারো জিতলেন। এবং দায়িত্বে থাকা ওয়ার্ডগুলিতে দলকে জেতালেনও। কিন্তু মেয়র পদের জন্য কতটা এগিয়ে রইলেন? সে প্রশ্নের উত্তর পেতে আরও কয়েকটা দিন অপেক্ষা করতে হবে। কারণ, এই নির্বাচনে ফিরহাদকে ‘মেয়র পদপ্রার্থী’ বলে এখনো ঘোষণা করেনি তৃণমূল।

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে