“মমতার দয়ায় ক্যেরিয়ার গড়েছেন কেন?”: শুভেন্দুর মুন্ডুপাত কুনাল ঘোষের শব্দবাণে

0
17

কৃষকদের হিতার্থে আত্মহত্যা করেছেন এমন কৃষকদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য, কৃষকদের উপযুক্ত দামে সার, সেচের জন্য ভর্তুকিতে বিদ্যুৎ দেওয়া-সহ কয়েকটি দাবিতে সম্প্রতি সিঙ্গুরে রাজনৈতিক কর্মসূচি শুরু করেছে বিজেপি। দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়ের ধারে বিজেপি-র অবস্থান কর্মসূচি ও মিছিলে যোগ দিয়েছেন বঙ্গ বিজেপির তাবড় তাবড় নেতারা‌ও।

Advertisement

সিঙ্গুরে ধরনা মঞ্চ থেকে নন্দীগ্রাম জমি আন্দোলনের প্রসঙ্গ টেনে এবার রাজ্য সরকারকে বিঁধলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। মঙ্গলবার এখানে দলের ডাকা ‘কৃষক বাঁচাও আন্দোলনে’ যোগ দিয়ে নন্দীগ্রামের বিধায়ক বলেন, নন্দীগ্রামে কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়ে যেভাবে তিনি আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন, এখানেও দলের বিধায়কদের নিয়ে কৃষকদের সঙ্গে সেভাবেই লড়াই করবেন।

শুভেন্দুর মন্তব্যের পাল্টা দিতে দেরী করেনি সবুজ শিবির। রাজ্য তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ কটাক্ষ করেন, “যে দলের প্রধানমন্ত্রীকে কৃষকদের কাছে হাত জোড় করে ক্ষমা চাইতে হয়, সেই দলের মুখে কৃষকের কথা মানায় না। মমতার কৃষক-নীতি যদি ভ্রান্ত হয়, তা হলে তার উপর ভর করে শুভেন্দু এবং তাঁর বাবা রাজনৈতিক কেরিয়ার তৈরি করলেন কেন? এতদিন পর বিবেক জাগল?”

সম্প্রতি নিম্নচাপের অতিবৃষ্টিতে হুগলি, বর্ধমান, হাওড়ায় চাষের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে আলু ও সবজি চাষে। এই প্রসঙ্গ টেনে শুভেন্দু দাবি করেন, “মুখ্যমন্ত্রী দুর্গাপুজোয় ক্লাবগুলোকে ২০০ কোটি টাকা বিতরণ করেছেন। সেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের বীজ, সার ও জলের জন্যও অবিলম্বে ২০০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করুন মুখ্যমন্ত্রী।”

শুভেন্দুর কথায়, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষক আন্দোলনের কথা বলে ক্ষমতায় এসেছিলেন। তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরও তিনি কৃষকদের জন্য কিছু করেননি।” সিঙ্গুরের এই কর্মসূচি থেকে শুভেন্দু বলেন, “এই ধরনা থেকে বৃহত্তর কৃষক আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।”

মুখ্যমন্ত্রীর কৃষিনীতি নিয়ে শুভেন্দুর সমালোচনার পাল্টা তোপ দেগেছে তৃণমূলও। বিরোধী দলনেতার উদ্দেশে তোপ দেগে রাজ্য তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, “শুভেন্দু অধিকারী আজ বলছেন, মমতার পথ ভুল। তা হলে ২০০৫ সাল থেকে কেন মমতার পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তোলানোর জন্য এত পীড়াপীড়ি করতেন? যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কৃষক আন্দোলনে ভর করে শুভেন্দু ও শিশির অধিকারী নিজেদের রাজনৈতিক ভিত্তি পোক্ত করেছেন, আজ তাঁরাই বলছেন মমতার পথ ভুল! কেন তখন দলের নেত্রীর সঙ্গে ছিলেন সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম আন্দোলনে? তৃণমূলের টিকিটে সাংসদ হয়েছিলেন কেন? ২০১১-তে কেনই বা ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন?”

এদিন শুভেন্দুকে ‘পেগাসাস অধিকারী’ নামে উল্লেখ করে কুণাল বলেন, “যদি এত দিন আগে থেকেই ভুল ধরে ফেলেন, তাহলে মমতার দয়ায় তৃণমূল কর্মীদের আবেগকে ব্যবহার করে নিজের রাজনৈতিক কেরিয়ার তৈরি করেছিলেন কেন?”

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে