Tripura: অবশেষে গ্রেফতার সায়নী ঘোষ,হেলমেট পড়ে লাঠি হাতে হামলা বিজেপির,চলল ইট বৃষ্টিও, টুইটে ক্ষোভ প্রকাশ অভিষেকের

0
18

পুরোভোটের আগে ফের অশান্ত ত্রিপুরা। ত্রিপুরায় তৃণমূল নেতৃত্বের ওপর হামলায় কোন বিরাম নেই রোজই আক্রান্ত হচ্ছেন কেউ না কেউ। রবিবার সকালে তৃণমূল যুব নেত্রী সায়নী ঘোষকে জেরা করতে থানায় ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। থানায় সায়নী সহ তৃণমূলের নেতা নেত্রীরা ঢুকতেই থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে বিজেপির কর্মী সমর্থকেরা। থানা লক্ষ্য করে চলে ইটবৃষ্টি।

ত্রিপুরায় তৃণমূলের হয়ে প্রচার করতে সায়নী ঘোষ, কুণাল ঘোষ, সুস্মিতা দেবরা বাংলা থেকে গিয়ে আস্থানা গেড়েছেন ত্রিপুরার পোলো টাওয়ার হোটেলে। রবিবার সেখানে গিয়েই হাজির হয় ত্রিপুরা পুলিশ। ঘিরে ফেলা হয় গোটা হোটেল চত্বর। পুলিশের দাবী শনিবার রাতে সায়নী ঘোষের গাড়ির ধাক্কায় জখম হয়েছে এক ব্যাক্তি। এবং কাল বিপ্লব দেবের সভা চলাকালীন সেখানে সায়নী গাড়ি নিয়ে গিয়ে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের উত্যক্ত করে ও ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবকে কুরুচিকর ভাষায় গালিগালাজ করে বলেও অভিযোগ। তাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আগরতলা মহিলা থানায় যেতে হবে সায়নীকে। তখনই বাঁধ সারেন কুণাল ঘোষ সায়নীকে আটক করার নোটিস কোথায় তা দেখতে চান তিনি। এরপরেই পুলিশের সাথে কথা কাটাকাটিতে জরায় তৃণমূল নেতৃত্ব। পুলিশ আটকের নোটিস না দেখাতে পারলেও তাদের ওপর অর্ডার আছে বলে জানায়। অনুরোধ করা হয় সায়নীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় এসে হাজিরা দিতে। সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবী করেন সায়নী। তবু সৌজন্য রক্ষা করতে পূর্ব আগরতলা মহিলা থানায় হাজিরা দেন সায়নী সহ একাধিক তৃণমূল নেতৃত্ব।

আগরতলা মহিলা থানায় সায়নীকে জিজ্ঞাসাবাদ করার সময়ই থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে বিজেপি কর্মী সমর্থকেরা। পুলিশের সামনেই হেলমেট পড়ে লাঠি হাতে বিজেপির কর্মী সমর্থকেরা থানায় হামলা চালায় বলে অভিযোগ, চলে ইটবৃষ্টিও। ভাঙচুড় করা হয় স্থানীয় তৃণমূল নেতা সুবল ভৌমিকের গাড়ি। হামলায় দুজন তৃণমূল কর্মী আহত হয়। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশ বাহিনী এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এই ঘটনার পরেই সরব হয় তৃণমূল নেতৃত্ব। তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ত্রিপুরায় জঙ্গলের রাজত্ব চলছে। থানায় ডেকে এনে মেরে ফেলার ছক ছিল।“ সুস্মিতা দেব বলেন, ”আগামীকাল আমাদের সর্বভারতীয় সাধারন সম্পাদক প্রচারে আসবেন। তার আগে আমাদের সর্বস্তরের নেতা কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতেই বিজেপি শাসিত সরকারের পুলিশ আমাদের উপর হামলা চালিয়েছে।“

ঘটনার তীব্র নিন্দা করে টুইট করেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অবমাননা করা হচ্ছে বলেন তিনি।সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ ছিল সমস্ত রাজনৈতিক দলকেই নির্বিঘ্নে প্রচার করার সুযোগ দিতে হবে। আর এর দায়িত্ব নিতে হবে ত্রিপুরা প্রশাসনকেই।কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশের পরও লক্ষ্য করা গেছে বারবার তৃণমূলের কর্মী থেকে নেতা সবার ওপরই হামলা হতে। আর আজকের ঘটনার পর ক্ষিপ্ত হয়ে অভিষেক টুইট করেন “বিপ্লব দেব এতটাই নির্লজ্জ যে সুপ্রিম কোর্টের আদেশকে পাত্তা দিচ্ছে না। তিনি বারবার গুন্ডা পাঠিয়ে আমাদের সমর্থক ও মহিলা প্রার্থীদের উপর হামলা করাচ্ছেন, তাদের নিরাপত্তা দেওয়ার বদলে। ত্রিপুরায় বিজেপি সরকারের শাসনে গনতন্ত্রের প্রহসন হচ্ছে।“

News By Tania

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে