‘হাত বাধা-সংগঠনের ভূমিকা নেতিবাচক’, উত্তরাখণ্ড নির্বাচনের আগে বিতর্কিত পোস্ট রাওয়াতের! কি বলছেন তিনি?

0
10

আর মাত্র কয়েকদিন। বছর ঘুরলেই উত্তরাখণ্ডের বিধানসভা ভোট। ভোটের আগে এবার স্যোশাল মিডিয়ায় নিজের দল নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য রাখলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা হরিশ রাওয়াত।

Advertisement

এদিন নিজের দল নিয়েই ফেসবুক, টুইটারে একগুচ্ছ পোস্ট করেন হরিশ রাওয়াত। তিনি লিখেছেন, “নির্বাচনের মহাসমুদ্রে কেমন যেন আজবভাবে সাঁতার কাটতে হয়। সাংগঠনিক কাঠামো সাহায্যের জন্য হাত প্রসারিত করার পরিবর্তে আমাকে উপেক্ষা করছে, নয়তো নেতিবাচক ভূমিকা পালন করছে। নেতৃত্ব, সাগরে বেশ কয়েকটি কুমির ছেড়ে দিয়েছে। যেখানে আমাকে সাঁতার কাটতে হবে।”

হরিশের সংযোজন, “যাদের নির্দেশে আমাকে সাঁতার কাটতে হবে তাদের প্রতিনিধির আমার হাত-পা বেঁধে রাখছে। বেশ কিছু অনুষ্ঠান ঘুরে উপলোব্ধি করেছি যে, আমি যথেষ্ট সাঁতার কেটেছি এবং এটি বিশ্রামের সময়। তখনই আরেকটি কণ্ঠস্বর প্রকট হয়েছে, যা আমাকে কখনওই অসহায় না হতে এবং না পালাতে অনুরোধ করছে। আমি দ্বিধায় রয়েছি। নতুন বছর যেন আমাকে পথ দেখাক- আমি নিশ্চিত ভগবান কেদারনাথ আমাকে সেই পথের হদিশ দেবেন।”

আর এরপরেই এক সাংবাদিক বৈঠকে তাকে প্রশ্ন করা হয় তাঁর করা পোস্ট নিয়ে। কিন্তু এপ্রসঙ্গে কিছুই খোলসা করতে রাজি হননি রাওয়াত। তিনি ভবিষ্যতে এর ব্যাখ্যা দেবেন বলে জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, উত্তরাখণ্ড জয়ের স্বপ্ন দেখছে কংগ্রেস। কিন্তু দলের মধ্যে হ‌ওয়া গোষ্ঠীকোন্দলই বড় জগদ্দল পাথর। কংগ্রেস শিবিরের অন্দরের খবর, এবার ভোটে কংগ্রেসের প্রধান মুখ হতে পারেন বর্ষীয়ান নেতা হরিশ রাওয়াত। যার জেরেই দলে তাঁর বিরোধী গোষ্ঠী রাওয়াতকে হয়তো হেয় করার চেষ্টা করছে।

এপ্রসঙ্গে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক মথুরা দত্ত যোশী বলেছেন, “রাওয়াত উত্তখণ্ডীয়দের আবেগ, মনে কথা বলছেন। যা দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে।” যোশী একবাক্যে স্বীকার করেছেন রাওয়াত খুবই জনপ্রিয় নেতা। তার কথায়, “৭-১০ শতাংশ তাঁর নিজস্ব ভোট ব্যাঙ্ক রয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী কে হবেন তা দল ঠিক করবে কিন্তু রাওয়াতেরই পাল্লা ভারী। অভিজ্ঞতা একটা বড় ইস্যু হতে পারে।”

Advertisement

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে