Uttardinajpur: ইটাহারে বিজেপি বিজেপি যুব মোর্চার সহ সভাপতি খুনে উঠে আসছে নতুন তথ্য। অপরদিকে খুনের প্রতিবাদে বনধের ডাক বিজেপির

0
58

উত্তর দিনাজপুরে রবিবার রাতে নিজের বাড়ির সামনেই খুন হলেন বিজেপির যুব মোর্চার সহ সভাপতি মিঠুন ঘোষ (৩৭)। তৃনমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই খুন করে বলে বিজেপি নেতৃত্ব ও পরিবারের তরফ থেকে দাবী করা হয়। কিন্তু একজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করার পর খুনের নেপথ্যে কোন রাজনৈতিক যোগ নেই জানিয়ে দেয় পুলিশ। অপরদিকে দলীয় নেতা খুনের প্রতিবাদে বিজেপি উত্তর দিনাজপুরে আজ সকাল ৬ টা থেকে ৮ ঘন্টার বনধ ডাকে।

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, রাত ১০ ট নাগাদ রায়গঞ্জের ইটাহারে দূর্গাপুর পঞ্চায়েতের রাজবাড়ি এলাকায় বিজেপির যুব নেতা মিঠুন ঘোষ বাড়ি ডোকার পরই একটা ফোন পেয়ে আবার বেরিয়ে যান তিনি। তারপরেই একটি গুলির আওয়াজ পান তারা। বাড়ি থেকে বেরিয়েই কিছুটা দূরে রক্তাক্ত অবস্থায় মিঠুনের দেহ পরে থাকতে দেখেন পরিবারের লোকেরা। পেটে গুলি লাগে ওই বিজেপি যুব নেতার। স্থানীয় বাসিন্দা ও পরিবারের লোকেরা রক্তাক্ত অবস্থায় মিঠুনকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে গেলে, সেখানে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা।

মৃত বিজেপি নেতার ভাই অজিত ঘোষ পুলিশকে সুকুমার ঘোষ ও সন্তোষ মাহাতো নাম দুটি জানিয়েছেন। তিনি জানান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মিঠুনই তাকে নাম দুটি বলেন। তারপরেই রাতে পুলিশ সন্তোষ মাহাতোকে গ্রেফতার করে। পুলিশের দাবী জেরায় সন্তোষ মাহাতো জানান মিঠুন তাদের পূর্ব পরিচিত। সেদিন রাতে হোটেলে খাবার খেয়ে তারা তিন জনই মিঠুনের বাড়ি যান। বাড়ি থেকে একটু দূরে মিঠুন তাদের দাঁড় করিয়ে বাড়িতে যান। সেখান থেকে ২ টি আগ্নেয়াস্ত্র এনে তাদের দেখান। এমন সময়ই সুকুমার ঘোষের হাতে থাকা বন্দুক থেকে আচমকা গুলি চলে। পেটে গুলি লেগে রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন মিঠুন। সুকুমার ঘোষের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। তবে এই ঘটনার সঙ্গে কোন রাজনৈতিক যোগ আছে মানতে নারাজ পুলিশ। অন্যদিকে দলীয় নেতা খুনের প্রতিবাদে আজকে বিজেপির ডাকা ৮ ঘন্টা বনধে জেলা জুড়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

News By Tania

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে